প্রায় সময় বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলছে বিএনপি দলের নেতাকর্মীরা সহ সুশীল সমাজের অনেকেই। এমনকি নির্বাচনে জয়কে নিয়েও সমজে রয়েছে নানা প্রশ্ন। এছাড়াও নির্বাচনে ভোটকারচুপি ও জালিয়াতির মধ্যে দিয়ে ক্সমতাসীন রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগ সরকারের দায়িত্ব পালন করছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না উপ-নির্বাচন, নির্বাচন কমিশন ও বর্তমান সরকার বিষয়ে বেশ কিছু কথা তুলে ধরেছেন।
নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, ’যাদের দয়া-মায়া নাই তাদের বিরুদ্ধে ’পুত পুত’ করে আন্দোলনে বিজয়ী হওয়া যাবে না। তাদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হবে রাজপথে।’ পরিকল্পনা ও ছক ছাড়া কোন আন্দোলনে বিজয়ী হওয়া যায় না। তাই রাজনীতি স্পষ্ট করে গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করতে হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

আজ বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর তোপখানায় শিশু কল্যাণ মিলনায়তনে তৃণমূল নাগরিক আন্দোলনের অষ্টম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ’উপ-নির্বাচন, নির্বাচন কমিশন ও বর্তমান সরকার’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে এসব কথা বলেন মান্না। মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ’পরিস্থিতি তৈরি হলে রাজনৈতিক দলের ঐক্যের জন্য জনগণ অপেক্ষা করবে না। মানুষ পরিবর্তন চায়। সাহস করে রাজপথে নামতে হবে। ঘরে বসে আন্দোলনের কথা বললে হবে না। আন্দোলনের পটভূমি রচনা করতে হবে, নতুন পথের জন্য নতুন করে ভাবতে হবে।’ তিনি বলেন, ’সাহস করে জনগণকে উজ্জীবিত করে গণআন্দোলনের প্রস্তুতি নিয়ে রাজপথে নামার কোনো বিকল্প নেই। ’বেগম জিয়া সরকারের অনুকম্পায় মুক্ত হয়েছেন’- আওয়ামী লীগ নেতাদের এই বক্তব্যে কোনো প্রতিবাদ করতে পারছে না তার দল। কেন?’ উপনির্বাচনে অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক বলেন, ’এসব উপনির্বাচনে বিএনপি এককভাবেই অংশ নিচ্ছে। এতে বিএনপিরও যেমন কোনো লাভ হবে না, জনগণেরও কোনো লাভ হবে না। এসব উপনির্বাচনে বিএনপি ২-১ আসনে জিতলেও জনগণের কিছু আসে যায় না।’

উল্লেখ্য, ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগ দলের নেতাকর্মীরা প্রায় সময় বিএনপি দলকে নিয়ে নানা ভাবে কটাক্ষ করে থাকে। এমনকি আওয়ামীলীগ দলের সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বেশ কিছু দিন আগে বিএনপি আন্দোলনে ব্যর্থ বলে জানিয়েছে এবং বর্তমান সরকারের পরিবর্তন চাইলে আগামী নির্বাচন পর্যন্ত অপেক্ষার কথা বলেছেন।