বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেত্রী সাদিয়া নাবিলা। যিনি অভিনয় জগতে পা রেখেছিলেন বলিউড পাড়ায় অভিনয়ের মধ্যে দিয়ে। তবে বাংলাদেশে তার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র ’মিশন এক্সট্রিম’ যেটি খুব শীঘ্রই মুক্তি পেতে চলেছে। ভক্তদের নিকট তার জনপ্রিয়তার কোনো কমতি নেই বললেই চলে। তবে সম্প্রতি ’মিশন এক্সট্রিম’ সিনেমাটি নিয়ে তিনি নানা বিষয়ে আলোচনা করেছেন।
মিশন এক্সট্রিমে যুক্ত হওয়ার গল্প?

আমি তো অস্ট্রেলিয়ায় থাকি। ’মিশন এক্সট্রিম’ টিমের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয় আমার সঙ্গে। এরপর গত বছরের মার্চে দেশে আসি। তখন প্রথমে গ্রুমিংয়ে অংশ নিই। এরপর শ্যুটিং করি।

আপনার চরিত্র নিয়ে জানতে চাই?


এই সিনেমায় আমাকে আর আরিফিন শুভকে পুলিশের চরিত্রে দেখা যাবে। আমরা একে অপরের সঙ্গে কাজের সূত্রে আবদ্ধ থাকি। এর বাকিটা পর্দায় দেখা যাবে।

আরিফিন শুভর সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা কেমন?

আরিফিন শুভ অসাধারণ একজন অ্যাক্টর। মজার একজন মানুষ তিনি। অনেক ভালো হিউম্যান বিয়িং। কাজের সময়ে তিনি অনেকটাই নিবেদিতপ্রাণ। কাজ করার সময় দেখেছি, তিনি কখনই নিজেকে হিরোসুলভ ভাব নেননি। শুধু নিজের কাজটা নয়, সহকর্মীদের কাজটাও যেন ভালো হয় সেই বিষয়েও তিনি খেয়াল রাখতেন, সবাইকে সহায়তা করতেন।

নিজের চরিত্রের জন্য প্রস্তুতি...

এই চরিত্রে অভিনয় করার জন্য অনেক দিন নিজে নিজে প্রস্তুতি নিয়েছি। এরপর শ্যুটিং শুরুর আগেও ট্রেনিং দেওয়া হয়েছে। সানী সানোয়ার পুলিশের লোক। তিনি নিজেই আমাদের ট্রেইনআপ করিয়েছেন, নানা পরামর্শ দিয়েছেন।

বলিউড থেকে ঢালিউডে...

এটাকে নিচে নেমে যাওয়া বলব না। বলিউড নয়, মূলত দেশের একটি সিনেমায় কাজ করার অনেক ইচ্ছে ছিল দীর্ঘদিনের। কিন্তু ভাগ্যগুনে প্রথম কাজটা করা হয়ে যায় বলিউডে। অবশেষে এই সিনেমার মাধ্যমে সেই স্বপ্নটা পূরণ হলো। যাই হোক, এই সিনেমাটা কিন্তু কোনো অংশে কম হবে না। যারা সিনেমাটি দেখবেন তারাই এটার প্রশংসা করতে বাধ্য হবেন। দেখলেই সবাই বুঝবেন কেন সিনেমাটা করেছি। এই সিনেমাটা আর দশটা সাধারণ সিনেমার মতো নয়। এর আগেও সিনেমার প্রস্তাব পেয়েছি কিন্তু কাজ করিনি। এই সিনেমার ক্যারেক্টারটা ভিন্ন বলেই কাজ করেছি। পুলিশের স্পেশাল ফোর্সে আমাকে দেখা যাবে।

বলিউডের টিমের সঙ্গে ’মিশন এক্সট্রিম’ টিমের পার্থক্য?

বলিউডের সেটা ছিল আমার প্রথম সিনেমা। তার আগে কিন্তু কখনই জানতাম না সিনেমার কাজ কীভাবে হয়। তো ওদের সঙ্গে কাজ করে বুঝেছি যে সিনেমা কীভাবে নির্মাণ করা হয়। আর ’মিশন এক্সট্রিম’-এ কাজ করার জন্য যেদিন দেশে আসি তারপর থেকেই তারা আমাকে আপন করে নিয়েছে। ফলে বলিউডের ওই টিমের সঙ্গে এই টিমের কোনো কমপেয়ার করব না। তবে আমি বলব, এই টিমটা আমাকে যথেষ্ট হেল্প করছে। সবাই আমাকে আপন করে নিয়েছে, এটাই বড় কথা।

’পেরেশান পারিন্দা’র রেসপন্স কেমন ছিল?

মিস ইন্ডিয়া ওয়ার্ল্ডওয়াইড প্রতিযোগিতায় ফার্স্ট রানার আপ হওয়ার পর বলিউডের ওই সিনেমাটার প্রস্তাব পাই। আমাদের সিনেমাটা ছিল অনেকটা ডকুমেন্টারি সিনেমার মতোই। আর সিনেমাটা করার আগে কখনই ভাবিনি সিনেমাটা কতটা রেসপন্স পাবে। তবে সিনেমাটা ইন্ডিয়া, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ডে দেখানো হয়েছে। এটাকে বম্বের আর দশটা সিনেমার সঙ্গে তুলনা করব না। যারা দেখেছেন তারা প্রশংসা করেছেন। সে জন্য আমি হ্যাপি।


অবশেষে তার কাছে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সিনেমা নিয়েই। আপাতত দেশি সিনেমার প্রজেক্ট নিয়েই ভাবছি। তবে ২০১২ সাল তিনি ভাইয়ের ইচ্ছা আর বাবা-মায়ের চাওয়ায় পাড়ি জমান অস্ট্রেলিয়ার ক্যানবেরায়। সেখানে সৈয়দপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করার পর পরই তিনি উড়াল দেন নিজ ঠিকানায়। এরপর থেকেই অভিনয় নিয়ে তার পরিকল্পনা শুরু।