কোভিড১৯ ভাইরাসকে ঘিরে নানা প্রশ্নে প্রশ্নবিদ্ধ চীন। বর্তমান সময়ে বিশ্ব জুড়ে চীন প্রাননাশকারী কোভিড১৯ ভাইরাসটি ছড়িয়ে দিয়েছে বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশ চীনকে এমন দোষারোপ করছে। তবে প্রতিনিয়ত দোষারোপ করে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এমনকি তিনি বলেছেন তার কাছে এর সুনির্দিষ্ট প্রমানও রয়েছে। এছাড়াও তিনি চীনের বিরুদ্ধে একটি মামালাও ডায়ের করেছেন। সাম্প্রতিক সময়ে উহানের সেই নিয়ে সামনে এল আরো এক নতুন তথ্য।
মহামারী করোনা ভাইরাস যার আঘাতে পুরো পৃথিবী থমকে গেছে। এদিকে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস কি চীনের উহানের ল্যাব থেকেই ছড়িয়ে পড়েছে? গোটা বিশ্বের প্রায় সবার কাছেই এখন এটাই মিলিয়ন ডলারের প্রশ্ন। এরই মধ্যে উহানের ওই ল্যাব নিয়ে সামনে এল আরো এক তথ্য। উহান শহরের ল্যাবটি তাদের ওয়েবসাইট থেকে বিজ্ঞানীদের গবেষণার বেশ কিছু ছবি সরিয়ে নিয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে যুক্তরাজ্য ভিত্তিক ট্যাবলয়েড মেইল অনলাইনের প্রতিবেদনে। যে ছবিগুলিতে কভিড-১৯ রোগটি বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ার আগে বিজ্ঞানীরা করোনারভাইরাস বাদুড় থেকে ছড়িয়েছিল কিনা সেটা নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছেন এমন দৃশ্য দেখা গেছে।

মেইল অনলাইনের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ল্যাবটিতে একজন মার্কিন কূটনীতিকের পরিদর্শনের পরে সেখানকার রেফারেন্সগুলোও সম্পাদনা করা হয়েছে। যিনি এটি পরিদর্শন করে সেখানে বাদুড় নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা দেখে এ প্রচেষ্টা বিপদ ডেকে আনতে পারে বলে জানিয়েছিলেন। বেইজিংয়ের মার্কিন দূতাবাসের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ রিক সুইটজারের সফর সম্পর্কিত একটি প্রতিবেদনও ইনস্টিটিউটের ওয়েবসাইট থেকে সরিয়ে ফেলা হয়েছে।
সুইটজারের এই সফরের পরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস থেকে ল্যবটি নিয়ে স্টেট ডিপার্টমেন্টে সতর্কবার্তা প্রেরণ করা হয়েছিল। যেটিতে তিনি ডাব্লিউআইভি ল্যাবের বিজ্ঞানীদের সাথে আলাপ করেছেন বলে কূটনীতিক বার্তায় উল্লেখ করা হয়েছে। সেখানে আশঙ্কা করা হয়েছিল যে, নতুন ল্যাবটিতে যথাযথ প্রশিক্ষিত প্রযুক্তিবিদদের গুরুতর ঘাটতি রয়েছে এবং তদন্তকারীদের নিরাপদে এই উচ্চ-নিয়ন্ত্রণের পরীক্ষাগারটি পরিচালনা করার দরকার ছিল।’

গত মাসে, মেইল অনলাইন ল্যাবরেটরী ইনস্টিটিউটের অভ্যন্তর থেকে উদ্বেগজনক কিছু ছবি প্রকাশ করেছিল। যাতে ১৫০০ বিপজ্জনক ভাইরাসে ঠাসা একটি রেফ্রিজারেটরের দরজায় একটি ভাঙা সিল দেখানো হয়েছে। আমেরিকার দাবি, উহানের ওই ল্যাবরেটরি থেকেই লিক হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে ভাইরাস। উহানের মাছের বাজারের সঙ্গে ভাইরাসের কোনও সম্পর্ক নেই বলেই মনে করছে বহু বিশেষজ্ঞ। আমেরিকা এই বিষয়ে রীতিমত তদন্ত শুরু করেছে। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও জানিয়েছেন, কীভাবে গোটা বিশ্বে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ল তার নিখুঁত তদন্ত করবে আমেরিকা।

প্রসঙ্গত, গোটা বিশ্বে সর্ব প্রথম কোভিড১৯ ভাইরাসের উৎপত্তি হয় চীন থেকে।এরপর দেশ ভেদে ধরন বদলে ভায়াবহ আকার ধারন করেছে বিশ্বের অধিকাংশ দেশে। ইতিমধ্যে বিশ্বের অসংখ্য মানুষের প্রান কেঁড়ে নিয়েছে ভাইরাসটি। ভাইরাসটি বৈশ্বিক মহামারি হিসেবে ভায়াবহ তান্ডব চালাচ্ছে গোটা বিশ্বে। এই ভাইরাসকে ঘিরে গোটা বিশ্বে এক অস্থিরতা বিরাজ করছে।