রক্তে সুগারের মাত্রা বেড়ে গেলে ডায়াবেটিস হয়। আর যাদের ডায়াবেটিস আছে, তারা তো জানেনই ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ রাখার দরকার কতো বেশি। যাদের ডায়াবেটিস নেই, তাদেরও উচিৎ ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে রাখা। এতে পরবর্তীতে টাইপ টু ডায়াবেটিস হবার ঝুঁকি কম থাকে। আর ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে থাকলে আসলে শরীরটাও ভালো থাকে। বর্তমানে ডায়াবেটিস বেশ মহামারি আকার ধারণ করেছে। কায়িক শ্রম না করা, সঠিক খাদ্যাভ্যাস মেনে না চলা ইত্যাদি রক্তের সুগার বাড়িয়ে দেওয়ার অন্যতম কিছু কারণ।
ডায়াবেটিস রোগীর জন্য ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে না থাকলে জীবন পড়তে পারে ঝুঁকিতে। ডায়াবেটিস না থাকলেও ব্লাড সুগার যদি বেশি হয় তাহলে আপনার ক্লান্তি লাগতে পারে, ডিহাইড্রেশন দেখা দিতে পারে, ব্লাড প্রেশার হয়ে যেতে পারে অনিয়ন্ত্রিত। কিন্তু সবসময়েই যদি আপনার ব্লাড সুগার বেশি থাকে, তাহলে ইনসুলিন রেজিস্ট্যান্সের মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। বাড়তে পারে ওজন এবং পেটের মেদ। এটা যদি চলতে থাকে, শরীরের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গের মধ্যে পড়ে রক্তনালি, কিডনি, স্নায়ু, চোখ।

ডায়াবেটিস হলে তো চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে অবশ্যই জীবনযাপন করবেন, তবে কিছু ঘরোয়া উপায় রয়েছে, যেগুলো রক্তের সুগারকে কমাতে কাজ করবে কার্য্যকরীভাবে। আপনি ভিডিওটিতে দেওয়া এই ৩ টি প্রতিকার বাড়িতে বসে সহজে তৈরী করে নিতে পারেন। যে উপাদানগুলো আপনার রান্না ঘরেই পাবেন।