কোভিড১৯ ভাইরাসের ভয়াবহতার শিকার হয়ে বিশ্বের ৬ কোটিরও বেশি মানুষ দরিদ্রতার শিকার হতে পারে এমন শঙ্কা জানিয়ে সতর্ক বার্তা দিল বিশ্ব ব্যাংক। এছাড়াও বিশ্বের বিভিন্ন দেশের গবেষকরা জানিয়েছে করোনা সংকট দূর হলেও গোটা বিশ্ববাসী নতুন করে নানা ধরনের সংকটের কবলে পড়তে পারে। ইতিমধ্যে এই ভাইরাসের শিকার হয়ে বিশ্বে নানা ধরনের সংকট বিরাজ করছে। এমনকি এই সংকটের মুখে পড়ে গোটা বিশ্ব দিশেহারা। বিশ্বের ধনী-গরীব সকল দেশই করোনায় সৃষ্ট সংকট মোকাবিলার জন্য নানা ভাবে চেষ্টা করছে।
প্রাননাশকারী করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারির কারণে বিশ্বের ৬ কোটিরও বেশি মানুষ চরম দরিদ্রতার মুখে পড়তে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছে বিশ্ব ব্যাংক। করোনাভাইরাস মোকাবিলায় ১০০টি উন্নয়নশীল দেশের জন্য ১৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের জরুরি সহায়তার ঘোষণা দিয়েছে বিশ্ব ব্যাংক। মঙ্গলবার সংস্থাটির প্রেসিডেন্ট ডেভিড মালপাস ভিডিও কনফারেন্সে সাংবাদিকদের বলেন, উন্নয়নশীল দেশগুলোতে কোভিড-১৯ মহামারি ও লকডাউনের কারণে যে অর্থনৈতিক প্রভাব পড়েছে, তা বিশ্বের ৬ কোটি মানুষকে চরম দারিদ্রতার দিকে ঠেলে দিতে পারে। বিশ্ব ব্যাংকের সংজ্ঞা অনুযায়ী, যারা দৈনিক ১ দশমিক ৯০ ডলারের (১৬১ টাকা) চেয়ে কম অর্থে জীবনযাপন করেন তারাই চরম দরিদ্র।

করোনার কারণে ২০২০ সালে বিশ্ব অর্থনৈতিক উৎপাদন পাঁচ শতাংশেরও বেশি সংকুচিত হবে, যা দারিদ্র্য দূরীকরণে বিশ্বের দরিদ্রতম দেশগুলোর গত তিন বছরে প্রচেষ্টাকে মুছে ফেলবে বলে আশঙ্কা করছে বিশ্ব ব্যাংক। ডেভিড মালপাস বলেন, (করোনা পরিস্থিতিতে) লাখ লাখ জীবিকা ধ্বংস হয়ে গেছে এবং বিশ্বজুড়ে স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা চাপের মধ্যে রয়েছে। ১০০টি দেশের জন্য ইতোমধ্যে জরুরি অর্থ ছাড় করা হয়েছে জানিয়ে বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট বলেন, এই ১০০ দেশে বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ৭০ শতাংশ বাস করে। এসব দেশের স্বাস্থ্যসেবা খাতকে মজবুতকরণ, দরিদ্রদের সহযোগিতা, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের রক্ষণাবেক্ষণ ও অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে এই অর্থ ছাড় দেয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, করোনার শক্তিশালী তান্ডব থেকে রেহাই পায়নি বিশ্বের ধনী-গরীব কোন দেশই। বিশ্বের ধনী দেশ গুলোর ও নাজেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে করোনার মারাত্মক ভয়াবহতায়। এমনকি বিশ্বের চিকিৎসা বিদ্যায় উন্নত দেশ গুলোও চিকিৎসা সামগ্রীর সংকটে ভুগছে। এই প্রাননাশকারী ভাইরাস বিশ্বের প্রায় তিন লাখের বেশি মানুষের প্রান কেঁড়ে নিতে সক্ষম হয়েছে। এছাড়াও একাক দেশে একাক সময় তান্ডব চালাছে ভাইরাসটি।