বর্তমান সমাজে অনেক নেতাকর্মীরা আছেন যারা প্রথমে কথা দেওয়ার সময় খুব ভালো করেই কথা দেন। কিন্তু যখন তাকে খুব বেশি প্রয়োজন হয় তখন তার আর কোনো খোজ পাওয়া যায় না। বর্তমানে এভাবেই চলে আসছে সব জায়গাতেই। কেউ কথা দিয়ে তার কথার মান রাখে না, সবাই সবার নিজের সার্থের কথা ভাবে। তবে যদি এমনটা কোনো কাস্টমার কেয়ারে কল করার সময় হয়।

এ বিষয়ে নিজ ফেইজবুক পেইজে লিখে জানিয়েছেন ইফতেখায়রুল ইসলাম।

তার লেখাটি পাঠকদের জন্য হুবাহু তুলে ধরা হলো;

"আপনার কলটি আমাদের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ"

দুঃখিত আমাদের সবগুলো চ্যানেল এই মুহূর্তে ব্যস্ত আছে!

অনুগ্রহ করে অপেক্ষা করুন, আপনার কলটি আমাদের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ! কিছুক্ষণের মধ্যেই একজন কাস্টমার কেয়ার প্রতিনিধি আপনার সাথে যোগাযোগ করবেন! কিন্তু হায় সুনীলের ’কেউ কথা রাখেনি’ কবিতার বোস্টমীর মত সেই কাস্টমার কেয়ার প্রতিনিধি আর আসেনি।
এই আঙ্গিকে একবার ৫ মিনিট, একবার ১০ মিনিট, তারপর ৪ মিনিট এবং শেষবার ৭ মিনিট অপেক্ষা করার পরও যখন কাস্টমার কেয়ার অফিসারের নাগাল পেলাম না; তখন আমার মনে হয়েছে আমি খুবই অগুরুত্বপূর্ণ (যদিও আগে থেকেই জানতাম তথাপি মিথ্যা আশ্বাসেও গুরুত্বপূর্ণ হতে কার না ভাল লাগে)! কিন্তু অগুরুত্বপূর্ণ মানুষের টাকাও কেটে নিচ্ছে বারবার

ফিক্সড ভোকালের আপু অযথাই একই কথা শুনিয়ে শুনিয়ে, আমাকে গুরুত্বপূর্ণ বানিয়ে বিভ্রান্ত করেছেন, আর টাকা কেটেছেন

প্রশ্ন হচ্ছে প্রয়োজনীয় সেবা নেয়ার উদ্দেশ্যেই যারা ফোন করেন তারা কি খুব দীর্ঘ সময় খোশ গল্প করে নম্বর ব্যস্ত রাখেন? তাতো হবার কথা নয়!

কোন ব্যাংকের ফ্যাক্ট তা নাইবা জানলেন

তবে তারা যদি তাদের কথা রাখতো তাহলে মানুষকে আর বিভ্রান্তিতে পড়তে হতো না। কিন্তু বাস্তব যা ঘটছে তাতে এ দেশের সকল মানুষের জন্য একটি সমস্যা হয়ে দাড়াচ্ছে। প্রত্যেকেরই তাদের নিজ দায়িত্ব ভালো ভাবে পালন করা উচিত। তাহলে এমন সমস্যার মুখে আর কাউকে পড়তে হবে জনা।