সাম্প্রতিক সময়ে সমগ্র দেশ জুড়ে আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে পরিনত হয়েছেন ডা. ফেরদৌস রহমান। তিনি যুক্টরাষ্ট্রে কর্মরত একজন বাংলাদেশি ডাক্তার। চলমান কোভিড১৯ ভাইরাসের চলমান বৈশ্বিক সংকট মোকাবিলায় তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করছেন। এবং তিনি এই সংকটে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়ানোর জন্য দেশে এসেছেন। তার এই দেশে আশাকে ঘিরে অনেক তর্ক-বির্তকের সৃষ্টি হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় এবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক পোষ্ট দিয়েছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম।
আহ্ ফেরদৌস ভাই! অভ্যন্তরীণ কোন্দলের সর্বশেষ ছোবলটা আপনি খেলেন। হয়তো বা এতদিন পরে এসে! আমি নিশ্চিত যে সিনিয়ররা আপনাকে নিয়ে মিথ্যা লিখেছে, তারা অন্যদের দ্বারা পক্ষপাতদুষ্ট হয়ে লিখেছেন। আপনি তো ফেসবুকে তাদের উদ্দেশ্যে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন এখন পারলে তারা প্রমাণ করুক আপনার বিরুদ্ধে অভিযোগ সত্য। একটা মানুষের বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ার নিয়ে হুজুগে বিরুদ্ধে লিখাটা অনেক বড় অন্যায়। কারণ এতে আজকে ১৭ কোটি মানুষের কাছে তিনি খন্দকার খুনি মোস্তাকের ভাগিনা হিসেবে ঘৃণার পাত্র হিসেবে পরিচিতি লাভ করলেন। হয়তো বা কয়েক দিনের মধ্যেই ঘটনার তদন্ত হয়ে সত্য/মিথ্যা জিনিসটা বের হয়ে আসবে। তখন কিন্তু এত ভাইরাল হবে না কিংবা ফেরদৌস ভাই জনে জনে ব্যাখ্যাও দিতে পারবে না।

ফেরদৌস ভাইকে আমি চিনতাম না, করোনাকালীন সময়েই তারে চিনেছি। তবে আজকে সারাদিন তার সময়কার ছাত্রলীগ করা যতো বড় ভাইদের ফোন করলাম সবাই বিষয়টা নিয়ে খুব হতাশ এবং কেউ কেউ অসহায়ের মতো বললেন, কেনো কিছু লিখছো না? অবশ্য কারোর কথায় নয়, নিজের বিবেকের জায়গা থেকে লিখছি। মোস্তাক নামে তার মামা আছেন খবর সঠিক তবে সেই মামা থাকেন বোস্টনে এবং তিনি একজন ফার্মাসিস্ট। আমি কিছুটা ধারণা করি, ছাত্রলীগের ব্যাকগ্রাউন্ড দেখে ফেরদৌস ভাই হয়তো বা কোন গুরুত্বপূর্ণ চেয়ারের জন্য সুপারিশকৃত হয়েছেন যে চেয়ারের জন্য অনেকেই স্বপ্ন দেখেছেন দীর্ঘদিন।

যে সমস্ত প্রভাবশালীরা এমন নোংরামির খেলায় মেতে উঠেছেন মনে রাখবেন ইতিহাস ক্ষমা করবে না আপনাদের। রাজনীতিতে আমাদের প্রার্থনার জায়গা বলেন, প্রাপ্তি-প্রত্যাশার জায়গা বলেন, স্বপ্ন বাস্তবায়নের জায়গা বলেন, তা হচ্ছেন একমাত্র দেশরত্ন শেখ হাসিনা। তাই আমার বিশ্বাস দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশেই তদন্তের মাধ্যমে সত্য উদঘাটিত হবে। গুজবের বিরুদ্ধ লড়াই করতে করতে আমরা নিজেরাই গুজবে নিমজ্জিত হচ্ছি না তো?
ফেরদৌস ভাই মন খারাপ কইরেন না...

প্রসঙ্গত, যুক্তরাষ্ট্রের মত বাংলাদেশেও করোনার প্রাদুর্ভাব বিরাজমান। তবে গোটা বিশ্বের তুলনা কোভিড১৯ ভাইরাস মারাত্মক আকার ধারন করেছে যুক্তরাষ্ট্রে। এর ফলে যুক্তরাষ্ট্রে নিজ দেশের বাসিন্দা সহ সেখানে বসবাসকারী অসংখ্য প্রবাসীদের মত বাঙলীরাও বিপাকে পড়েছে। এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের এমন সংকটের মধ্যেও চিকিৎসা ক্ষেত্রে অনেক বাঙালী বিশেষ ভূমিকা পালন করছে। এরই মধ্যে অন্যতম একজন ডা. ফেরদৌস রহমান।

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)
লেখক: সাবেক সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ