বেকারত্বভ দেশ ও জাতির একটি প্রধান সমস্যা। দেশ থেকে বেকারত্ব দূরর করতে পারলে দেশ ও জাতির উন্নয়ন সম্ভব। বাংলাদেশে এমনিতেই রয়েছে অধিক মাত্রায় বেকারত্বের সংখ্যা। এরই মধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মত বাংলাদেশেও করোনার তান্ডবে অসহায় হয়ে পড়েছে অসংখ্য মানুষ। এরই পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশে কর্মরত বিদেশীদের নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক পোষ্ট দিয়েছেন আসিফ নজরুল।
বিদেশীরা চাকরী করছে কিভাবে?
বাংলাদেশে বেকার সমস্যা আগেও ছিল। কিন্তু করোনাকালে এটি প্রকট আকার ধারন করেছে। এমন এক সময়ে বাংলাদেশে কর্মরত বিদেশীদের নিয়ে প্রশ্ন তোলা আরো জরুরী হয়ে পড়েছে। বাংলাদেশের তরুণরা বেকার থাকবে আর বিদেশীরা এখানে চাকরী করে শতশত কোটি টাকা নিয়ে যাবে এটা কিভাবে গ্রহনযোগ্য হয়? এরমধ্যে অনেকে আবার অবৈধভাবে চাকরী করছেন এমন কথাও শুনি আমরা। অবৈধভাবে ভারতে কাজ করতে গেলে সীমান্তেই আমাদের দেশের মানুষকে গু/লি খেয়ে ম/র/তে হয়।। আর আমরা কিনা অন্যদের অবৈধভাবে কাজ করতে দিচ্ছি নিজেদের নাগরিকদের বেকার রেখে? ভারতীয় হোক, পাকিস্তানী হোক, বৈধ-অবৈধ সকল বিদেশীকে চাকরী থেকে হঠাতে হবে। শুধুমাত্র অতি আবশ্যিক ক্ষেত্রে কোন বিকল্প না পাওয়া গেলে তারা বৈধভাবে আবেদন করে কাজ করতে পারবে। অন্য কোনভাবে না।

বর্তমান সময়ে বাংলাদেশে অনেক উন্নয়নমূলক কাজ চলমান রয়েছে। এই সকল ধরনের কাজে বাংলাদেশের শ্রমিকদের পাশাপাশি প্রতিবেশী অন্য বেশ কয়েকটি দেশের নাগরিকরা কর্মরত রয়েছে। তবে বাংলাদেশের শ্রমিকদের সংখ্যা তুলনা মূলক ভাবে কম। এরই ধারাবাহিকতায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক পোষ্ট দিয়ে আসিফ নজরুল জানিয়েছেন আগে বাংলাদেশের শ্রমিকদের প্রাধন্য দেওয়া হোক এবং বিশেষ প্রয়োজন হলে নিয়ম নীতির মধ্যে দিয়ে বিদেশীদের কাজের সুযোগ দেওয়া। এতে করে বাংলাদেশের বেকারত্বের সংখ্যাও কমবে।