বর্তমান সময়ে দেশে জাতীয়তাবাদী রাজনৈতিক দল বিএনপির মধ্যে এক অস্থিতিশীল পরিবেশ বিরাজ করছে। দীর্ঘ দিন ধরে ক্ষমতার বাইরে থাকায় এবং দলের চেয়ারপারসনের অনুপস্তিতিতে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে অস্থিরতা মারাত্মক আকার ধারন করেছে। সাম্প্রতিক সময়ে বিএনপি দলের নির্বাচন প্রসঙ্গে বেশ কিছু কথা তুলে ধরেছেন বিএনপির সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা।
বিএনপির সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা বলেছেন, বিএনপি কখনই মনোনয়ন বাণিজ্য করে না। তিনি বলেন, এখন প্রশ্ন আসতে পারে তাহলে বিএনপি কেন একই আসনে একাধিক মনোনয়ন দিয়েছেন? তার যথোপযুক্ত কারণ আপনার দেখেছেন, যে একজনের পর একজনের মনোনয়ন জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে বাতিল করা হয়েছে। নানান তুচ্ছ কারণ দেখিয়ে এটা করা হচ্ছে, যেটা বিএনপি উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন। এ কারণে একই আসনে একাধিক মনোনয়ন দেয়া হয়। সম্প্রতি একটি বেসরকারি টেলিভিশনের টকশো অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। রুমিন ফারহানা বলেন, ’যদি ন্যূনতম সুষ্ঠু নির্বাচন হয়। আমলা বা প্রশাসন যদি দলীয় ক্যা/ডা/রের আচরণ না করে। পু/লি/শ যদি গু/ন্ডা/র আচরণ না করে। তাহলে বিএনপির বিজয় আসবে। বিএনপির তৃণমূল কর্মীরা বিশ্বাস করে ৯০ শতাংশ ভোট বিএনপি পাবে।’

বিএনপির এই সাংসদ বলেন, ঢাকা ১০ আসনে নির্বাচনের সময় আমি ভোট দিতে গিয়েছিলাম। আমি দেখেছি সেখানে কিভাবে দলীয় ক্যাডাররা কেন্দ্র দখল করে রেখেছে। আমাকেও হয়তো মা/র খেতে হতো কিন্তু আমাকে চেনে সে জন্য একটা ভোটে তাদের কি আসে যায়, তাই মারধর খেতে হয় নি। কিন্তু আমাদের বিএনপির যারা কর্মী তাদেরকে নির্বাচনী এলাকার সীমানায় ভিড়তে দেয়া হয় নাই। এখানে যৌথ প্রযোজনার কাজ করে প্রশাসন, যৌথ প্রযোজনায় কাজ করে পুলিশ বাহিনী আর আওয়ামী লীগের ক্যাডাররা তো আছেই।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আপনি যদি বলেন আওয়ামী লীগের কর্মীদের মোকাবেলা করে বিএনপি কর্মীরা টিকে থাকবে সেটা এক জিনিস। আর যদি বলেন রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে লড়াইয় করে বিএনপিকে টিকে থাকবে সেটা ভিন্ন যুক্তি। তাহলে কি আপনি আশা করছেন রাষ্ট্রযন্ত্রের বিরুদ্ধে বিএনপি দাঁড়াবে এটাকি সম্ভব? এটা তো সম্ভব নয়।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে দেশের নির্বাচন ব্যবস্থা নিয়ে সামাজের বিভিন্ন শ্রেনীর বিভিন্ন পেশার মানুষের মাঝে নানা ধরনের প্রশ্ন উঠেছে। এমনকি বিএনপি দল সহ দেশের আরোও বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক দল এই নির্বাচন পদ্ধতি নিয়ে নানা ধরনের দ্বিমত পোষন করেছে। এবং ভোটে অনেক কারচুপিরও অভিযোগ তুলেছে রাজনৈতিক দল গুলো।