গতকাল মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) নয়াদিল্লীতে ভারত ও বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রীদের বৈঠকে তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদ সংবাদ মাধ্যমে বলেন, ভারতের সাহায্যে ঢাকায় গড়ে উঠবে ফিল্ম সিটি। ভারতের কাছে আমরা ফিল্ম সিটি তৈরির জন্য সাহায্য চেয়েছিলাম৷ তাদের এ ব্যাপারে বিপুল অভিজ্ঞতা আছে। এখন বিশ্বের সবচেয়ে বড় সিনেমা প্রস্তুতকারক দেশ এখন ভারত। বাংলাদেশ ফিল্ম সিটি তৈরি হলে এটা অনেক বড় ভারতের কাছ থেকে অনেক বড় পাওয়া হবে।
ভারতের তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকরের সঙ্গে বৈঠক করেন বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদ। বৈঠকে বেশ কয়েকটি বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়। তার মধ্যে অন্যতম ঢাকায় ফিল্ম সিটি তৈরিতে ভারতের সাহায্যের বিষয়টি৷

ভারতের তথ্যমন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর জানিয়েছেন, ’’ফিল্ম সিটি করা নিয়ে কথা হয়েছে৷ দু’দেশের মধ্যে চলচ্চিত্রের ও সরকারি টিভির অনুষ্ঠান আদানপ্রদান নিয়ে কথা হয়েছে৷ আমরা বাংলাদেশে ফিল্ম সিটি করার জন্য সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছি৷’’

সূত্র জানিয়েছে, ফিল্ম সিটি নিয়ে আলোচনার জন্য ভারত অবিলম্বে বাংলাদেশকে একটা প্রতিনিধদল পাঠাতে বলেছে৷ তারা এসে মুম্বই ও হায়দরাবাদে ফিল্ম সিটি দেখবে৷ তারপর কী ধরনের সাহায্য চাই, কোন ধরনের প্রযুক্তি তারা আশা করছে, সে বিষয়ে জানাবে৷ ভারত সে ভাবে বাংলাদেশকে সাহায্য করবে৷

বর্তমানে বাংলাদেশের সিনেমায় গুলো দর্শকদের কাছে তেমন একটা জনপ্রিয়তা পাচ্ছে না। আর এর ফলে বাংলাদেশের অনেক নামিদামি হল বন্ধ হতে দেখা গেছে। তবে এখন যদি ভারত বাংলাদেশকে ফিল্ম সিটি তৈরি করতে সাহায্য করে, তাহলে সেটা হবে বাংলাদেশের জন্য অনেক বড় পাওয়া। তবে তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদ আশাবাদি এমন সহযোগিতা ভারতের কাছ থেকে পাওয়া যাবে।