পাকিস্তান-বাংলাদেশ প্রতিবেশী দুই দেশ। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এরই ধারাবাহিকতায় আজ দুপরে তারা দুজনে দীর্ঘ ১৫ মিনিট ধরে কথা বলেছেন। এবং একে অপরে বর্তমান করোনা পরিস্তিতি সহ বন্যা পরিস্তিতি এবং এই সকল সংকট মোকাবিলায় নেওয়া নানা পদক্ষেপ প্রসঙ্গে কথা বলেছেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান টেলিফোনে কথা বলেছেন। বুধবার (২২ জুলাই) দুই নেতার মধ্যে ফোনালাপ হয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব সংবাদমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, দুপুর ১টার দিকে ইমরান খান প্রধানমন্ত্রীকে ফোন করেন। এ সময় দুই নেতার মধ্যে ১৫ মিনিট কথা হয়। দুই নেতা প্রথমে কুশলাদি বিনিময়ের পর ইমরান খান বাংলাদেশে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ সম্পর্কে জানতে চান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের গৃহীত নানা পদক্ষেপের বিষয় ইমরান খানের কাছে তুলে ধরেন। প্রেস সচিব জানান, ইমরান খান প্রধানমন্ত্রীর কাছে দেশের বন্যা পরিস্থিতির কথাও জানতে চান। পরে প্রধানমন্ত্রী বন্যা পরিস্থিতি তুলে ধরেন।

এর আগে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, পাকিস্তানের আগ্রহের বিষয়টি আমাদের জানানোর পরও এই টেলিফোন আলাপের বিষয়টি নির্ধারিত হয়। তবে কী বিষয় নিয়ে আলাপ হবে তা তখন পরিস্কার করা হয়নি। তিনি জানান, ঢাকায় অবস্থিত ইসলামাবাদ মিশন টেলিফোন আলাপের অনুরোধের বিষয় নিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে। পরে দুই দেশের সরকারপ্রধানের কথা বলার বিষয়টি নির্ধারিত হয়।

প্রসঙ্গত, ইমরান খান বর্তমান সময়ে পাকিস্তানের সরকার প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও তার একটি বিশেষ পরিচয় রয়েছে। তিনি একজন ক্রিকেট খেলোয়ার। তিনি পাকিস্তানের জাতীয় ক্রিকেট দলে হয়ে অনেক আর্ন্তজাতিক ম্যাচে অংশ গ্রহন করেছেন। এবং তিনি তার খেলার জীবনে পেয়েছেন অনেক সফলতা এবং সম্মাননা। এছাড়াও সরকার হিসেবে দেশের নাগরিকদের জন্য নেওয়া নানা পদক্ষেপ নিয়েও তিনি বেশ প্রশংসিত হয়েছেন।