সাম্প্রতিক সময়ে করোনার মহামারির কবলে পড়ে বেশ বিপাকে পড়েছে বাংলাদেশ সহ গোটা বিশ্ব। এমনকি বিপাকে পড়েছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসকারী প্রবাসী শ্রমিকরা। বর্তমান সময়ে দেশে সৌদি ফেরত প্রবাসী বাংলাদেশীদেরকে ঘিরে এক আওস্থিতিশীল পরিবেশ বিরাজ করছে। নানা জটিলতায় ক্ষতির মুখে পড়েছে দেশের অসংখ্য প্রবাসীরা। এমনকি অনেক শ্রমিকদের সৌদি ফিরতে অনিশ্চয়াতার মধ্যে পড়েছে। তবে বাংলাদেশ সরকার সকল প্রবাসীদের চলমান সংকট নিরসনের জন্য বিশেষ ভাবে কাজ করছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে বিশেষ ফ্লাইটে সৌদিগামীদের জন্য ১০ নির্দেশনা দিয়েছে বিমান কর্তপক্ষ।
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর ঢাকা থেকে জেদ্দার উদ্দেশে একটি এবং রিয়াদের উদ্দেশে ২৭ সেপ্টেম্বর একটি বিশেষ ফ্লাইট পরিচালনা করবে। ওই দুই ফ্লাইটে শুধু ১৬ ও ১৭ মার্চের বিমানের টিকেটধারী ফিরতি যাত্রীদের আজ বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে সব তথ্য ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ বিমান কাউন্টারে বুকিং করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ফেসবুক পেজে গতকাল বুধবার রাতে এসব যাত্রীদের উদ্দেশে কিছু নির্দেশনা দিয়ে পোস্ট করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়, বিমান কেবল ঢাকা থেকে জেদ্দা ও রিয়াদে যাত্রী পরিবহন করবে। অভ্যন্তরীণ স্টেশন (বরিশাল, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, যশোর, রাজশাহী, সৈয়দপুর ও সিলেট) থেকে কোনো যাত্রী পরিবহন করা হবে না। তবে উল্লিখিত স্টেশনের যাত্রীরা ঢাকা থেকে ভ্রমণ করতে পারবেন।

বিমানের দশটি নির্দেশনা হচ্ছে-

১. সৌদি আরবের বিভিন্ন গন্তব্যে প্রবেশের জন্য অনুমোদিত বৈধ ভিসাধারী যাত্রীরা (বহির্গমন/প্রবেশ/আবাস/ইকামাহ ও ভ্রমণ) যেতে পারবেন। যাত্রীরা তাদের ’আবশার’ অ্যাকাউন্ট থেকে ভিসার বৈধতা যাচাই করতে পারবেন। https://www.absher.sa/portal/landing.html

২. ফ্লাইট ছাড়ার ছয় ঘণ্টা আগে যাত্রীদের স্মার্টফোনসহ বিমানবন্দরে উপস্থিত হতে হবে।

৩. উপরে উল্লিখিত যাত্রীদের বিমানে বোর্ডিংয়ের অনুমতি দেওয়া হবে না যদি না তারা সরকার অনুমোদিত পরীক্ষাগার থেকে পিসিআর পরীক্ষার নেগেটিভ ফলাফল দিতে পারেন। পরীক্ষা যাতে কোনোভাবেই সৌদি আরবে পৌঁছানোর আগে ৪৮ ঘণ্টার বেশি দেরি না হয়। যাত্রীদের কোভিড-১৯ নেগেটিভ টেস্ট ফলাফলের ছয়টি কপি বহন করতে হবে এবং সময় গণনা শুরু হবে নমুনা সংগ্রহের সময় থেকে।

৪. উল্লিখিত যাত্রীদের সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কোভিড-১৯ স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিয়ন্ত্রণ ও পদক্ষেপগুলো মেনে সৌদি আরবে প্রবেশ করতে হবে। বিমানে বোর্ডিংয়ের আগে যাত্রীদের অবশ্যই সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ফর্ম পূরণ ও স্বাক্ষর করতে হবে। সৌদি বিমানবন্দরে প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে বিমানবন্দর স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রে পূরণ করা ও স্বাক্ষর করা ফরমটি জমা দিতে হবে।

৫. উপরে বর্ণিত নির্দেশাবলী অমান্য করলে সিভিল এভিয়েশন আইনের ১৬৩ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী বিশাল জরিমানা আরোপ হবে। যাত্রীদের অবশ্যই সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ফর্মে (অনুচ্ছেদ-২) উল্লেখিত ’তাতামান’ ও ’তাওয়াক্কালনা’ অ্যাপ ডাউনলোড করতে হবে।

Tawakkalna- https://play.google.com/store/apps/details…

Tataman - https://www.moh.gov.sa/en/eServices/Pages/Rest-assured.aspx

৬. সব যাত্রীকে সাতদিন নিজ গৃহে সেলফ-কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। তবে নেগেটিভ টেস্ট ফলাফলধারী চিকিৎসকদের বেলায় তিনদিন বাড়তি অর্থাৎ ১০ দিন সেলফ-কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।

৭. সৌদি আরবে পৌঁছানোর আট ঘণ্টার মধ্যে তাতামান অ্যাপের মাধ্যমে মাধ্যমে তাঁদের আবাসস্থলের অবস্থান অবহিত করতে হবে।

৮. যাত্রীদের কোভিড-১৯-এর উপসর্গগুলোর প্রতি লক্ষ্য রাখতে হবে এবং কোনো উপসর্গ দেখা গেলে তাৎক্ষণিক ৯৩৭ নম্বরে কল করতে হবে অথবা প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে যেতে হবে। যদি প্রয়োজন হয় জরুরি বিভাগে যেতে হবে।

৯. তাতামান অ্যাপে যাত্রীদের অবশ্যই প্রতিদিনের স্বাস্থ্য মূল্যায়ন করতে হবে।

১০. নিজ গৃহে সেলফ-কোয়ারেন্টাইনে থাকার সময় যাত্রীদের অবশ্যই সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ফরমে উল্লেখিত পূর্ব সতর্কতামূলক পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করতে হবে।

প্রসঙ্গত, করোনার কারনে বিভিন্ন দেশ থেকে ইতিমধ্যে অসংখ্য প্রবাসী শ্রমিকরা দেশে ফেরত চলে এসেছে। এবং এমনকি অনেকে বেকার হয়ে পড়েছে। তবে বাংলাদেশ সরকার করোনায় সৃষ্ট সকল প্রবাসীদের জন্য শক্ত হাতে চলমান সংকট নিরসনের জন্য নানা ধরনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করেছে। এছাড়াও সরকারি সকল দায়িত্ব প্রাপ্ত ব্যক্তিদেরকে সংকট নিরসনের জন্য দ্রুত সময়ে প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ গ্রহনের নির্দেশনা দিয়েছে সরকার।