কিছু দিন আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি গ্রহনের কথা জানিয়েছেন। এরপর থেকেই দেশের রাজনৈতিক দল গুলো আসন্ন নির্বাচনকে নিয়ে সরব হয়ে উঠেছে। এক্ষেত্রে নির্বাচন ব্যবস্থা এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিয়েও নানা আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। তবে দেশের তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রসঙ্গে বেশ কিছু কথা জানালেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।
আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, বাংলাদেশে আর কোনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না। বাংলাদেশে হবে সাংবিধানিক সরকার। সংবিধানের আলোকে আগামী দিনে নির্বাচন হবে এবং সেটির দায়িত্ব পালন করবে নির্বাচন কমিশন। যে নির্বাচন কমিশনের ওপর কোনো সরকারের, কোনো প্রধানমন্ত্রীর, কোনো স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ভূমিকা থাকবে না। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কোনো নিয়ন্ত্রণ সেখানে করতে পারবে না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সামরিক বাহিনী স্বাধীনভাবে কাজ করবে এবং সুন্দর-সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। শনিবার সকালে টাঙ্গাইল সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন কৃষিমন্ত্রী।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, আন্দোলনের ভয় আপনারা দেখাবেন না। কারণ আন্দোলন দেখে আমরা ভয় পাই না। ২০১৩ সালে মোকাবিলা করেছি, ২০১৬ সালেও করেছি। হেফাজতকে মোকাবিলা করেছি। ইনশআল্লাহ আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অনেক সক্ষমতা এখন। তারা অনেক সুশৃঙ্খল, তারা অনেক বড়বড় দায়িত্ব পালন করেছে। জ/ঙ্গী/দে/র মোকাবিলা করে সারা পৃথিবীতে আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রশংসা অর্জন করেছে। তিনি আরও বলেন, আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগের দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনকে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সম্পূর্ণ সহায়তা করা এবং সুষ্ঠু-সুন্দর নির্বাচনের ব্যবস্থা করে দেওয়া। রাজনৈতিকভাবে যদি কোনো আন্দোলন আসে, তাহলে আমরা সেই আন্দোলকে মোকাবিলা করব।

অবশ্যে দেশের নির্বাচন ব্যবস্থা নিয়ে নানা মত বিরোধ রয়েছে। নির্বাচন ব্যবস্থা নিয়ে বিরোধী দল গুলো বিভিন্ন অভিযোগ করে আসছে। এমনকি তারা সুষ্ঠ এবং নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবি জানিয়েছে। তবে বারবরই এই সকল অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে নির্বাচন কমিশন। এবং তারা জানিয়েছে দেশে সুষ্ঠ এবং নিরপেক্ষ ভাবে সকল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।