গোটা পৃথিবী জুড়ে বিভিন্ন ধরনের ধর্মের প্রচলন রয়েছে। এই সকল ধর্মের মধ্যে অন্যতম একটি ধর্ম ইসলাম। এই ইসালম ধর্মের সবচেয়ে বড় ইবাদতের মাস রমজান মাস। এই মাস জুড়ে মুসলমান সম্প্রদায়ের ব্যাক্তিরা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত না খেয়ে থাকে সৃষ্টি কর্তার সন্তুষ্টি লাভের আশায়। তবে সাম্প্রতিক সময়ে রামজান মাস নিয়ে এক বার্তা প্রদান করেছেন সৌদি আরবের আল-কাসিম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল বিভাগের জলবায়ুর অধ্যাপক ড. আব্দুল্লাহ আল-মুসনাদ। তিনি জানিয়েছেন ২০৩০ সালে ৩৬ দিন রোজা রাখবে মুসলমানরা।
আরবি মাসগুলো ২৯ কিংবা ৩০ দিনে হয়ে থাকে। রমজান এর বাইরে নয়। তবে কি ২০৩০ সালের রমজান মাস ৩৬ হয়ে যাবে! ’না’, রমজান মাস ঠিকই থাকবে। বরং বছরের শুরু ও শেষে রমজান অনুষ্ঠিত হবে। আর তাতে মুমিন মুসলমান একই বছর ৩৬ দিন রোজা পালন করবে। এমনটি জানিয়েছেন সৌদি আরবের এক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল বিভাগরে জলবায়ুর অধ্যাপক ড. আব্দুল্লাহ আল-মুসনাদ। সৌদি আরবের আল-কাসিম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল বিভাগের জলবায়ুর অধ্যাপক ড. আব্দুল্লাহ আল-মুসনাদ বলেছেন, এমন ঘটনা বার বার পুনরাবৃত্তি হয় না। মুসলমানরা ২০৩০ সালে ৩৬ দিন রোজা রাখবে।

তিনি টুইটারে লিখেছেন, ’২০৩০ সালের ৫ জানুয়ারি মোতাবেক ১৪৫১ হিজরির পবিত্র রমজান মাস শুরু হবে। আর আশা করা যায় এ মাসটি ৩০দিন পূর্ণ হবে। আবার একই বছর ২৬ ডিসেম্বর মোতাবেক ১৪৫২ হিজরির পবিত্র রমজান মাস শুরু হবে। আর তাতে ডিসেম্বরে মুমিন মুসলমান ৬ দিন রোজা পালন করবে। সে হিসেবে ২০৩০ সালে মুসলিম উম্মাহ ৩৬ দিন রোজা পালন করবে।’ এমনটি হওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করে এ অধ্যাপক বলেন, চন্দ্র বছর আর সৌরবর্ষের মধ্যে প্রতি বছর ১১ দিন ব্যবধান হয়ে থাকে। উল্লেখ্য চন্দ্র বছরের মাসগুলো ২৯ কিংবা ৩০ দিন হয়ে থাকে। আর সৌরবর্ষের মাসগুলো ৩০ ও ৩১ দিনে নির্ধারিত। সে কারণে বছর শেষে চন্দ্র বছর ১১ দিন কমে যায়। আর এভাবে ২০৩০ সালে পবিত্র রমজান মাসের শুরু হবে দুই বার।

প্রসঙ্গত, সাম্প্রতিক সময়ে গোটা পৃথিবী জুড়ে মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষ এক ভিন্ন পরিবেশে এবং নানা বিধি-নিষেধের মধ্যে দিয়ে রমজান মাস উদযাপন করছে। এই সংকট বা এমন পরিস্তিতির মূলে রয়েছে প্রাননাশকারী কোভিড১৯ ভাইরাস। এই ভাইরাসের শিকার হয়ে ইতিহাসের এমন এক বিরল ঘটনার শিকার হয়েছে মুসলমানরা।